Bangladesh Quota Reform Protests Movement Updated News

Bangladesh Quota Reform Protests Movement Updated News 2024. The author collects updated news from different news channels regarding the Quota Reform Protests Movement in Bangladesh and updates them here.

Bangladesh Quota Reform Protests Movement Updated News

Sunday and Monday are announced as general holidays

Date & Time: 20 July, 2024, 5:15 PM

Due to the current situation in the country, Sunday and Monday have been declared a general holiday across the country by executive order.

The Ministry of Public Administration issued a notification about this on Saturday (July 20).

During this time, government, semi-government, private and autonomous institutions will remain closed.

Ministry's public relations officer Abdullah Shibli Sadiq told BBC Bengal this information.

However, essential services such as electricity, water, gas and other fuels, fire services, ports and cleaning activities, including telephone, internet and postal services and the vehicles and workers engaged in these related services will be excluded.

Hospitals, medical facilities and offices engaged in emergency work are also excluded from this declaration.

Apart from this, the Supreme Court will give instructions regarding the Bangladesh Bank and the courts regarding the banks.

Earlier, the Garment Owners Association BGMEA announced that all their factories will be closed on Sunday.

The curfew issued in the country to deal with the violent situation that has been going on for the past few days will remain in force till 10 am on Sunday, the government has announced.

When the internet connection will return - no one knows

Date & Time: 20 July, 2024, 4:35 PM

Although Bangladesh has been cut off from internet connection for more than 45 hours, it is not possible to say for sure when this service will be available again.

All forms of internet connectivity are down in the country.

BTRC Chairman Mohiuddin Ahmed said that the work of re-connecting and repairing damaged data center and transmission line is going on in BTRC building in Mohakhali, Dhaka.

About the chairman, the public relations officer of the institution Noor A Khawaja said that the work is underway to restore the internet connection to normal condition. So far the work has progressed well.

Mobile internet services are also down despite authorities talking about transmission lines.

There was no clear message as to when internet connectivity would be restored.

At least five more people died in the violence on Saturday

Date & Time: 20 July, 2024, 3:55 PM

It is reported that at least four people have been killed in clashes between protesters and the police in Jatrabari area of ​​Dhaka. The bodies of the four deceased have been kept in the Dhaka Medical College Hospital morgue.

Medical sources told the BBC that the bodies of the four came from the Jatrabari area.

During curfew on Saturday, the law and order forces in Jatrabari area chased and counter-chased the protestors.

Meanwhile, one person died in the violence in Savar on Saturday afternoon. At least 20 people have been treated at a local hospital in that incident.

In the morning, BBB correspondent saw police firing tearshells and rubber bullets in Rampura, Banshri area as well.

In this incident, the injured were taken to different hospitals for treatment.

Stateside will seek annulment of High Court verdict: Attorney General

Date & Time: 20 July, 2024, 3:50 PM

The state party will want to quash the verdict given by the High Court on the quota reform as it is 'not legal'. Attorney General Aminuddin Manik told BBC Bangla this information.

The full bench of the Supreme Court is scheduled to hear the appeal against the verdict at 10 am on Sunday.

The circular issued by the government canceling the quota in government jobs, after hearing a writ, was declared invalid by the High Court on June 5.

However, since then, protests against the verdict have started. Hundreds of people have died in clashes and violence in the last few days. Curfew was imposed and army deployed to control the situation.

The law minister said that the hearing of the appeal against the verdict was earlier scheduled for August 8, but it has been brought forward on the request of the government.

Where is Nahid Islam, one of the coordinators of the quota movement?

Date & Time: 20 July, 2024, 3:40 PM

Nahid Islam, one of the coordinators of the Kota Movement, has not been confirmed as to his whereabouts.

The family has contacted the law enforcement agencies, but the whereabouts of Nahid Islam are still unknown.

Nahid Islam was at his friend's house in the Nandipara area of ​​Khilgaon on Friday.

On the condition of anonymity, Nahid's friend told BBC Bangla, "At around 2:30 a.m., a group of law enforcement forces came down to Nahid's house voluntarily." He also said that there were white-clothed detectives there.

His friend immediately informed the family of Nahid Islam. Later, the family tried to find out its whereabouts.

Mr. Badrul Islam, Islam's father, told BBC Bangla, "Since we came to know, we have searched in various places, including the police station. But we still don't know where he is."

Dhaka Metropolitan Police also does not know about the whereabouts of Nahid Islam.

DMP's DC Media Farooq Hossain told BBC that they do not know anything about the detention of Nahid Islam.

Clash in Savar, one dead

Date & Time: 20 July, 2024, 3:30 PM

Between 12:30 pm and 2 am on Saturday, agitators clashed with police and Chhatra League workers in the Savar bus stand area.

Local journalist Shamsuzzaman Shams said that one person was killed in the clash that had been going on for an hour and a half between Razzak Plaza and Radio Colony in that area. At least 15 others were injured.

Local journalist Shamsuzzaman Shams told BBC from Enam Medical College Hospital in Savar at around 3:30 p.m. on Saturday, one injured person had been taken to the ICU and many more injured are still being brought to the hospital.

Pragati Sarani along with Newbazar-Bada is uninhabited

Date & Time: 20 July, 2024, 3:12 PM

The situation in the capital's Pragati Sarani was seen on Saturday too. Even as the day progressed, there was no normality in the movement of citizens. Rather, people who left their homes for urgent needs were seen suffering. Confusion of people was seen in different lanes of Nabunbazar-Bada-Rampura. But the law and order forces did not allow them to take position on the main road. At many places, empty bullets and tear shells were seen entering the streets. At around noon, the BBC reporter saw the policemen entering different lanes of the Gulshan-Bada Link Road and firing blank bullets. At that time, the position of the army was not seen there. Several pedestrians who were walking in isolation along the main road were seen being chased away by baton charges. Around 1 p.m., a close-up picture was also seen in the new market of the capital. If anyone tried to move there along the main road, they were seen to be removed.

Army personnel were seen on both sides of the American Embassy.

However, they were conducting search operations from a specific location. The agitators tried to take a stand on the main road in some places of Rampura. A police officer who was there told BBC Bangla that the road had to be cleared and moved forward. It would have been easy to control the situation completely if the road was favorable for traffic. He claimed that the police are playing an active role in suppressing the movement from place to place. A person who came out in need of emergency treatment told BBC Bangla, I don't know when the situation will be normal. On the way from Rampura to Nabinbazar on foot, he said that he was stopped at various places. Signs of vandalism and fire all over Pragati Sarani. There were burnt vehicles, metal road dividers, bullet shells and pieces of bricks lying everywhere. When the correspondent of BBC Bengal was leaving the place, the members of the law and order forces were seen sitting on the side of the road preparing for lunch.

BNP leader Nazrul Islam Khan arrested

Date & Time: 20 July, 2024, 3:05 PM

BNP National Standing Committee member Nazrul Islam Khan was arrested by the detective police on Saturday morning from his Banani DOHS residence.

This news has been confirmed by the BNP Chairperson's press wing.

Secretary General of the party Mirza Fakhrul Islam Alamgir has expressed concern over the incident and demanded his immediate release, said Shairul Kabir Khan, press wing officer of the chairperson.

Prime Minister's two foreign visits cancelled

Date & Time:20 July, 2024, 2:45 PM

Prime Minister Sheikh Hasina's previously scheduled visit to Spain and Brazil has been canceled. Prime Minister's Deputy Press Secretary Imrul Kayes said that the announcement came from the Ministry of Foreign Affairs on Friday.

He said that the Prime Minister has taken this decision considering the current situation arising in the country regarding the quota reform movement.

The Prime Minister was scheduled to visit Spain from July 21 to 23 and from there to Brazil from July 24 to 27

In Friday's violence, 56 people were killed across the country, hundreds of deaths in three days

Curfew and army deployment across the country - thus Ittefaq made headlines.

According to the news, the curfew will run from noon on Friday to noon on Saturday in the first phase. In the second phase, this curfew will be in force from 2 pm on Saturday to 10 am on Sunday.

On Friday night, Prime Minister Sheikh Hasina decided to deploy the army after a meeting with the leaders of the 14-party alliance and senior officials of the law enforcement agencies.

Top headlines of the day: 56 killed in violence, curfew imposed. At least 100 people have died across the country in three days of violence on Wednesday, according to news reports.

Among them, at least 44 people died in violence in Dhaka alone on Friday.

In response to the question of how long the curfew that has been issued since Friday night will last, Dhaka Metropolitan Police Commissioner Habibur Rahman said that the curfew will continue until the situation calms down.

Another contemporary headline is, 'Fire in numerous government buildings in districts'. According to the report, many government offices and vehicles were attacked, vandalized, and set on fire on Friday due to the ongoing protests against the quota reform movement.

Agitating students and BNP-Jamaat activists clashed with police-BGB at various places. Police, RAB, BGB members, and common people are among the injured.

The image of curfew seen in Dhaka on Saturday

The presence of people on the streets of Dhaka on Saturday morning was much less than usual after a curfew was imposed. A handful of shops were seen open in some areas.

The morning scene at the capital's caravan market was much like any other day. Traders of daily commodities including vegetables and fish were seen sitting in the market since morning.

In various areas, people on the roads were much less than usual.

There were only a handful of cars on the road, hardly any vehicles besides media cars, ambulances, or law enforcement vehicles. There were no CNG-powered autorickshaws on the streets either.

However, rickshaws were seen plying in all areas.

Since morning, no procession or assembly was seen anywhere in Dhaka's Dhanmondi, Mohammadpur, Mirpur, Paltan, Rajarbagh, Moghbazar, Hatirjheel, and Badda areas.

However, the BBC correspondent saw protesters gathering at one place blocking the road near the Khilgao rail gate near Rampura. At that time many of the protestors were seen holding sticks and rods.

Traces of the previous day's violence were seen on the streets at various places including Dhanmondi, and Mohammadpur. Pieces of bricks and broken rods of road dividers were scattered everywhere on the road.

Wrecks of burnt vehicles were seen on the roads at various places in Mohammadpur, Rampura, and Mahakhali.

Army positions were seen around Shahbagh, Mahakhali, and Sangsad Bhavan. Army personnel can be seen checking the identity cards of rickshaws and car passengers passing through those places.

The BBC correspondent saw the check post of army personnel on the road in front of Shaheen College, Manik Mia Avenue, Mirpur No. 10 Gol Chatwar area of ​​Dhaka. They were checking all the vehicles by stopping them.

There was a curfew break from 12 pm to 2 am. After that, the curfew started again, which will continue till 10 am on Sunday.

More than 800 convicts escaped after the attack on Narsingdi jail

After the attack on the Narsingdi jail, more than 800 inmates escaped, prison officials said.

Thousands of people attacked the Narsingdi Jail around 5:30 PM. 826 inmates escaped when they started breaking down the prison doors and lockups.

Among them, two were JMB women prisoners and seven were Ansar al-Islam prisoners. Besides, it is said that more than four hundred BNP and its affiliated organizations were prisoners.

Narsingdi Jail Superintendent Mohammad Abul Kalam Azad said that the rampage took place inside the prison from 5:15 pm to 10:00 pm on Friday.

“The conditions inside were terrible. They were vandalizing whatever they could get. We were hostages. Later the prisoners helped us to escape. We somehow changed clothes and came out in civilian dress. Any longer would have killed us,” he said.

Mr. Azad said that since Friday morning, a massive rally and procession has been going on in Narsingdi based on the quota reform movement.

At one point several thousand people started marching towards Jail Khana Bhawan in the Velanagar area around 4 pm.

They had indigenous weapons including sticks, hockey sticks, ram da, and pistols. At one point around quarter past they broke the lock of the main gate with a hammer and started entering.

Meanwhile, panic spread throughout the prison. The miscreants ransacked inside and took away their weapons from the jail staff. Then they entered and started breaking the lock-up one by one.

কোটা সংস্কার আন্দোলনের আপডেট নিউজ ২০২৪

Quota Protest Updated News in Bangladesh 2024. কোটা সংস্কার আন্দোলনের আপডেট নিউজ ২০২৪. বাংলাদেশের সকল অনলাইন পত্রিকা এবং টেলিভিশন চ্যানেল বন্ধ থাকায় পৃথিবীর অনেক দেশে অবস্থানকারী প্রবাসীরা দেশের সঠিক তথ্য পাচ্ছেন না। আমরা বিবিসি বাংলা পত্রিকা সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রাপ্ত নিউজ গুলো এখানে আপডেট দেওয়ার চেষ্টা করছি।

রোববার ও সোমবার সাধারণ ছুটি ঘোষণা

Date & Time:20 July, 2024, 5:15 PM

দেশের বর্তমান পরিস্থিতির কারণে রোববার ও সোমবার নির্বাহী আদেশে সারা দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এ নিয়ে শনিবার (২০ জুলাই) একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এ সময়, সরকারি, আধা-সরকারি, বেসরকারি এবং স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ শিবলী সাদিক বিবিসি বাংলাকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

তবে জরুরি পরিষেবা যেমন – বিদ্যুৎ পানি, গ্যাস ও অন্যান্য জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহ এবং পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমসহ টেলিফোন, ইন্টারনেট ও ডাক সেবা এবং এই সংশ্লিষ্ট সেবা কাজে নিয়োজিত যানবাহন এবং কর্মীগণ এর আওতাবহির্ভূত থাকবে।

এছাড়াও হাসপাতাল, চিকিৎসা কার্যক্রম এবং জরুরি কাজে নিয়োজিত অফিসমূহও এই ঘোষণার আওতাবহির্ভূত।

এর বাইরে ব্যাংকগুলোর বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং আদালতের বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশনা দেবে।

এর আগে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ঘোষণা দিয়েছে যে, রোববার তাদের সব কারখানা বন্ধ থাকবে।

গত কয়েকদিন ধরে চলা সহিংস পরিস্থিতি সামলাতে দেশে জারি করা কারফিউ রবিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত বলবৎ থাকবে বলে সরকারি ঘোষণা রয়েছে।

কখন ফিরবে ইন্টারনেট সংযোগ - কেউ জানে না

Date & Time:20 July, 2024, 4:35 PM

ইন্টারনেট সংযোগ থেকে বাংলাদেশ ৪৫ ঘণ্টার বেশি সময় বিচ্ছিন্ন থাকলেও কখন পুনরায় এই সেবা পাওয়া যাবে, তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না।

দেশটিতে সব ধরনের ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ রয়েছে।

ঢাকার মহাখালীর বিটিআরসি ভবনে ক্ষতিগ্রস্ত ডেটা সেন্টার ও সঞ্চালন লাইন পুনঃসংযোগ ও মেরামতের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ।

চেয়ারম্যানের বরাতে প্রতিষ্ঠানটির জনসংযোগ কর্মকর্তা নূর এ খাজা জানান, ইন্টারনেট সংযোগ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে কাজ চলছে। এখন পর্যন্ত কাজের বেশ অগ্রগতি হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ সঞ্চালন লাইনের কথা বললেও মোবাইল ইন্টারনেট সেবাও বন্ধ রয়েছে।

কবে নাগাদ ইন্টারনেট সংযোগ ফিরবে সে বিষয়ে কোন স্পষ্ট বার্তা পাওয়া যায়নি।

শনিবার সহিংসতায় মৃত্যু হয়েছে আরো অন্তত পাঁচ জনের

Date & Time:20 July, 2024, 3:55 PM

ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকায় পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষে অন্তত চারজন নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহত চার জনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

এই চারজনের মরদেহ যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে এসেছে বলে মেডিকেল সূত্রগুলো বিবিসিকে জানিয়েছে।

শনিবার কারফিউ এর মধ্যেই যাত্রাবাড়ি এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে বিক্ষোভকারীদের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে।

এদিকে শনিবার দুপুরে সাভারে সহিংসতায় একজন মারা গেছে বলে জানা গেছে। ওই ঘটনায় অন্তত ২০ জনকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

সকালে বিবিবির সংবাদদাতা রামপুরা, বনশ্রী এলাকায়ও পুলিশকে টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করতে দেখেছেন।

এ ঘটনায় আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।

হাইকোর্টের রায় বাতিল চাইবে রাষ্ট্রপক্ষ: অ্যাটর্নি জেনারেল

Date & Time:20 July, 2024, 3:50 PM

কোটা সংস্কার নিয়ে হাইকোর্টের দেয়া রায় ‘আইনসম্মত না হওয়ায়’ তা বাতিল চাইবে রাষ্ট্রপক্ষ। অ্যাটর্নি জেনারেল আমিনুদ্দিন মানিক বিবিসি বাংলাকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানি রোববার সকাল ১০টায় হওয়ার কথা রয়েছে।

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল করে সরকার যে পরিপত্র জারি করেছিল, একটি রিটের শুনানি শেষে গত ৫ই জুন তা অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্ট।

তবে এরপর থেকে ওই রায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়। গত কয়েকদিন ধরে সংঘর্ষ, সহিংসতায় শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কারফিউ জারি এবং সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হয়েছে।

রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানির জন্য এর আগে ৮ই অগাস্ট তারিখ নির্ধারিত থাকলেও সরকারের আবেদনে সেটি এগিয়ে আনা হয়েছে বলে আইনমন্ত্রী জানিয়েছিলেন।

কোটা আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক নাহিদ ইসলাম এখন কোথায়?

Date & Time:20 July, 2024, 3:40 PM

কোটা আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক নাহিদ ইসলাম আটক হওয়ার পর এখন পর্যন্ত সে কোথায় আছে সেটি নিশ্চিত হওয়া যায় নি।

পরিবারের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে যোগাযোগ করা হলেও এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি কোথায় আছে নাহিদ ইসলাম।

শুক্রবার নাহিদ ইসলাম খিলগাঁওয়ের নন্দীপাড়া এলাকার তার এক বন্ধুর বাসায় ছিলেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নাহিদের ওই বন্ধু বিবিসি বাংলাকে বলেন, “রাত আড়াইটার দিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একটি দল আসলে নাহিদ স্বেচ্ছায় বাসার নিচে নেমে আসে।‘’ তখন সেখানে সাদা পোশাকের গোয়েন্দা সদস্যরা ছিল বলেও জানান তিনি।

বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে নাহিদ ইসলামের পরিবারকে তার ওই বন্ধু জানান। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে কোথায় আছে সেটি জানার চেষ্টা করা হয়।

মি. ইসলামের বাবা বদরুল ইসলাম বিবিসি বাংলাকে বলেন, “আমরা জানার পর থেকে থানাসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়েছি। কিন্তু সে কোথায় আছে সেটি আমরা এখনো জানতে পারি নি”।

নাহিদ ইসলাম কোথায় আছে সে সম্পর্কে জানেন না ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশও।

ডিএমপির ডিসি মিডিয়া ফারুক হোসেন বিবিসি জানান, নাহিদ ইসলাম আটকের বিষয়ে তাদের কিছু জানা নেই।

সাভারে সংঘর্ষ, একজনের মৃত্যুর খবর

Date & Time:20 July, 2024, 3:30 PM

শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ২টা, এই সময়ের মাঝে সাভার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রলীগ কর্মীদের সাথে আন্দোলনকারীদের সংঘর্ষ হয়।

ওই এলাকার রাজ্জাক প্লাজা থেকে রেডিও কলোনি'র মাঝে দেড় ঘণ্টা যাবৎ চলমান এই সংঘর্ষের ঘটনায় একজন মারা গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিক শামসুজ্জামান শামস। এতে আরো অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।

সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে শনিবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে স্থানীয় সাংবাদিক শামসুজ্জামান শামস বিবিসিকে জানান, আহত একজনকে আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং এখনও অনেক আহতকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হচ্ছে।

নতুনবাজার-বাড্ডাসহ প্রগতি সরণি জনমানবশূন্য

Date & Time:20 July, 2024, 3:12 PM

রাজধানীর প্রগতি সরণিজুড়ে শনিবারও থমথমে পরিস্থিতি দেখা গেছে। বেলা গড়ালেও নাগরিক চলাচলে স্বাভাবিকতা দেখা যায়নি। বরং জরুরি প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে দেখা গেছে। নতুনবাজার-বাড্ডা-রামপুরার বিভিন্ন গলিতে মানুষজনের জটলা দেখা গেছে। কিন্তু তাদেরকে মূল সড়কে অবস্থান নিতে দেয়নি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অনেক স্থানে গলিতে গলিতে ঢুকে ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল ছুড়তে দেখা গেছে। বেলা ১২টার দিকে রাজধানীর গুলশান-বাড্ডা লিঙ্ক রোডের বিভিন্ন গলিতে ঢুকে পুলিশকে ফাঁকা গুলি ছুড়তে দেখেছেন বিবিসির সংবাদদাতা।

এ সময় সেখানে সেনাবাহিনীর অবস্থান দেখা যায়নি। মূল সড়ক ধরে বিচ্ছিন্নভাবে হেঁটে যাওয়া বেশ কয়েকজন পথচারীকে লাঠিচার্জ করে সরিয়ে দিতে দেখা গেছে। বেলা ১টার দিকে রাজধানীর নতুনবাজারেও কাছাকাছি চিত্র দেখা গেছে। সেখানে মূল সড়ক ধরে কেউ চলাচলের চেষ্টা করলে তাদের সরিয়ে দিতে দেখা গেছে। আমেরিকান অ্যাম্বেসির দুই প্রান্তে সেনা সদস্যদের অবস্থান দেখা গেছে। তবে নির্দিষ্ট অবস্থানে থেকেই তল্লাশি কার্যক্রম পরিচালনা করছিলেন তারা। রামপুরার কিছু স্থানে মূল সড়কেও অবস্থান নেয়ার চেষ্টা করেছেন আন্দোলনকারীরা। সেখানে থাকা এক পুলিশ কর্মকর্তা বিবিসি বাংলাকে বলেন, সড়ক পরিষ্কার করে করে আগাতে হচ্ছে। রাস্তা চলাচলের অনুকূলে হলে পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নেয়া সহজ হতো। স্থানে স্থানে গিয়ে আন্দোলন দমনে পুলিশই সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন বলে দাবি করেন তিনি।

জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজনে বের হওয়া একজন ব্যক্তি বিবিসি বাংলাকে জানান, অবস্থা কবে স্বাভাবিক হবে জানি না। রামপুরা থেকে নতুনবাজার পর্যন্ত পায়ে হেঁটে আসার পথে স্থানে স্থানে বাধাপ্রাপ্ত হওয়ার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, মেডিকেল রিপোর্ট দেখিয়ে ছাড়া পেয়েছি। গোটা প্রগতি সরণিজুড়ে ভাঙচুর ও অগ্নিকাণ্ডের চিহ্ন। জায়গায় জায়গায় পড়ে ছিল ভস্মীভূত যানবাহন, ধাতব সড়ক বিভাজক, বুলেটের খোসা ও ইটের টুকরা। বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা যখন সেই স্থান ত্যাগ করছিলেন তখন সড়কের পাশে বসে মধ্যাহ্নভোজের প্রস্তুতি নিতে দেখা যাচ্ছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের।

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান আটক

Date & Time:20 July, 2024, 3:05 PM

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে তার বনানী ডিওএইচএস এর বাসা থেকে শনিবার সকালে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করেছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের প্রেস উইং থেকে এ খবর নিশ্চিত করা হয়েছে।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করেছেন বলে জানিয়েছেন চেয়ারপার্সনের প্রেস উইং এর কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান।

প্রধানমন্ত্রীর দুই বিদেশ সফর বাতিল

Date & Time:20 July, 2024, 2:45 PM

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পূর্ব নির্ধারিত স্পেন ও ব্রাজিল সফর বাতিল হয়েছে। শুক্রবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই ঘোষণা এসেছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সচিব ইমরুল কায়েস।

তিনি জানিয়েছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে দেশে উদ্ভূত বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রী এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর ২১ থেকে ২৩শে জুলাই স্পেনে এবং সেখান থেকে ২৪ থেকে ২৭শে জুলাই ব্রাজিলে সফরে থাকার কথা ছিল

শনিবার ঢাকায় কারফিউ-র যে চিত্র দেখা যাচ্ছে

কারফিউ জারি করার পর শনিবার সকালে ঢাকার রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। কিছু এলাকায় হাতে গোনা কয়েকটি দোকান খোলা দেখা গেছে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সকাল বেলার চিত্র ছিল অনেকটা অন্যান্য দিনের মতই। শাক-সবজি, মাছ সহ নিত্যপণ্যের ব্যবসায়ীদের সকাল থেকেই বাজারে বসতে দেখা গেছে।

বিভিন্ন এলাকায় রাস্তাঘাটে মানুষের উপস্থিতি স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম দেখা গেছে।

রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা ছিল হাতে গোনা। গণমাধ্যমের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স বা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গাড়ি বাদে অন্য গাড়ি ছিল না বললেই চলে। সিএনজি চালিত অটোরিকশাও ছিল না রাস্তায়।

তবে সব এলাকাতেই রিকশা চলাচল করতে দেখা গেছে।

সকাল থেকে ঢাকার ধানমণ্ডি, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, পল্টন, রাজারবাগ, মগবাজার, হাতিরঝিল, বাড্ডা, এলাকার কোথাও কোনো ধরনের মিছিল বা সমাবেশ দেখা যায়নি।

তবে রামপুরার পাশে খিলগাও রেলগেটের কাছে রাস্তা আটকে বিক্ষোভকারীদের এক জায়গায় জড়ো হয়ে থাকতে দেখেন বিবিসি সংবাদদাতা। সেসময় বিক্ষোভকারীদের অনেকের হাতে লাঠি, রড দেখা যায়।

ধানমণ্ডি, মোহাম্মদপুর সহ বিভিন্ন জায়গায় রাস্তায় আগের দিনের সহিংসতার চিহ্ন দেখা গেছে। সব জায়গায় রাস্তায় ছড়িয়ে ছিল ইটের টুকরা, রাস্তার ডিভাইডারের ভাঙা রড।

মোহাম্মদপুর, রামপুরা, মহাখালির বিভিন্ন জায়গায় রাস্তায় দেখা গেছে পুড়ে যাওয়া গাড়ির ধ্বংসাবশেষ।

শাহবাগ, মহাখালি আর সংসদ ভবনের চারপাশে সেনাবাহিনীর অবস্থান দেখা গেছে। সেসব জায়গা দিয়ে যাওয়া-আসা করা রিকশা, গাড়ির যাত্রীদের পরিচয়পত্র যাচাই করতে দেখা যায় সেনা সদস্যদের।

ঢাকার মিরপুর ১০ নম্বর গোল চত্বর এলাকায়, মানিক মিয়া এভিনিউ, শাহীন কলেজের সামনের সড়কে সেনা সদস্যদেরচেকপোস্ট দেখতে পেয়েছেন বিবিসির সংবাদদাতা। সব যানবাহন থামিয়ে তারা যাচাই করছিলেন।

বেলা ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত কারফিউ বিরতি ছিল। এরপর আবার কারফিউ শুরু হয়েছে, যা রোববার সকাল ১০টা পর্যন্ত চলবে।

১০ মিনিট আগের নিউজ
নরসিংদীর কারাগারে হামলার পর পালিয়েছে আট শতাধিক আসামী

নরসিংদীর কারাগারে হামলার পর সেখানকার আট শতাধিক কারাবন্দী পালিয়ে গেছে বলে কারা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বিকাল পৌঁনে পাঁচটার দিকে হাজার হাজার মানুষ নরসিংদী কারাগারে হামলা চালায়। এরপর তারা কারাগারের দরজা ও লকআপ ভাঙ্গতে শুরু করলে ৮২৬ জন কারাবন্দী পালিয়ে যায়।

এদের মধ্যে দুজন জেএমবি নারী কয়েদি এবং সাত জন আনসার আল ইসলামের কয়েদি ছিল। এছাড়া চার শতাধিক বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের বন্দী নেতাকর্মী ছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

শুক্রবার বিকেল পৌনে পাঁচটা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত কারাগারের ভেতরে এই তাণ্ডব চলে বলে জানিয়েছেন নরসিংদীর জেল সুপার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ।

“ভেতরের অবস্থা ভয়াবহ ছিল। তারা যা পাচ্ছিল তাই ভাঙচুর করছিল। আমরা জিম্মি হয়ে পড়েছিলাম। পরে কয়েদীরাই আমাদের সাহায্য করে পালাতে। আমরা কোনভাবে পোশাক বদলে সিভিল ড্রেসে বের হয়ে আসি। আর কতোক্ষণ থাকলে আমাদের মেরেই ফেলতো,” তিনি বলেন।

মি. আজাদ জানান, শুক্রবার সকাল থেকেই নরসিংদীতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে ব্যাপক সমাবেশ, মিছিল চলছিল।

এক পর্যায়ে কয়েক হাজার মানুষ বিকেল চারটার দিকে ভেলানগর এলাকায় জেলখানা ভবনের দিকে অগ্রসর হতে থাকে।

এসময় তাদের হাতে লাঠিসোটা, হকিস্টিক, রাম দা, পিস্তলসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র ছিল। এক পর্যায়ে পৌনে পাঁচার দিকে তারা হাতুড়ি দিয়ে মূল ফটকের লক ভেঙে ফেলে ভেতরে প্রবেশ করতে থাকে।

এসময় পুরো কারাগার জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। দুর্বৃত্তরা ভেতরে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় এবং জেল কর্মীদের থেকে তাদের অস্ত্র ছিনিয়ে নেয়। এরপর ভেতরে ঢুকে তারা একে একে লক-আপ ভাঙতে শুরু করে।

২০ মিনিট আগের নিউজ

চট্টগ্রাম ও রাজশাহী শহরের পরিস্থিতি

চট্টগ্রাম

সারা দেশে সেনাবাহিনী মোতায়েনের কথা জানানো হলেও বেলা একটা পর্যন্ত চট্টগ্রামের শহরে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি দেখা যায়নি।

নগরের মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও শহরে পেট্রোলিং করছে বিজিবি।

সামাজিক মাধ্যম ও অনলাইন পোর্টালগুলো বন্ধ থাকায় চট্টগ্রামের অনেকেই কারফিউ জারির কথা জানতে পারেননি বলে জানান স্থানীয় সাংবাদিক অনুপম শীল।

ফলে সকাল থেকেই বিভিন্ন পেশার মানুষ সড়কে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বের হন। তবে বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তাদের সংখ্যা কমতে থাকে।

এদিকে চট্টগ্রামে বেশ কিছু কলকারখানা খোলা থাকার খবর পাওয়া গেছে।

শহরের বিভিন্ন গলিতে খাবারের দোকান খোলা হয়েছে এবং এলাকার ভেতরে জনসাধারণের উপস্থিতি দেখা গেছে।

তবে প্রধান সড়কগুলোতে দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

চটগ্রাম শহরের ভেতরে গণপরিবহন চলতে দেখা যায়নি। আগে থেকেই বন্ধ ছিল দূরপাল্লার বাস। তবে সীমিত পরিমাণে স্বল্প দূরত্বের কিছু বাস চলতে দেখা গেছে। এছাড়াও প্যাডেল ও ব্যাটারিচালিত রিক্সা চলাচল করছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার সাইফুল ইসলাম, জনসাধারণকে কারফিউ শিথিল হবার সময় বেরিয়ে জরুরি কাজ শেষ করার এবং বাকি সময়ে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছন।

এছাড়া কোটা আন্দোলনকারীরা দুপুর একটার দিকে দুই নম্বর গেট মোড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করলেও সেখানে কাউকে জড়ো হতে দেখা যায়নি বলে জানান আরেক স্থানীয় সাংবাদিক আব্দুল করিম।

রাজশাহী

শনিবার বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত রাজশাহীতে কোনো বিক্ষোভ বা সংঘাতের ঘটনা দেখা যায়নি বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম।

শনিবার দিবাগর রাত ১২টা থেকে কারফিউ জারি করার ফলে শহরে যান চলাচল এবং দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

তবে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত রাজশাহীতে সেনাবাহিনীর সদস্যদের দেখা যায়নি।

শহরজুড়ে পুলিশ, বিজিবিসহ একাধিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যকে টহল দিতে দেখা গেছে।

হাসপাতাল কিংবা জরুরি পরিষেবা ব্যতিত কাউকে শহরের দিকে যেতে দেয়া হচ্ছে না।

বিশেষ করে যে সড়কগুলোতে গত কয়েকদিনে বিক্ষোভকারীরা জড়ো হয়েছে, সেখানে যাতায়াতকারীদের তল্লাশি নেয়া হচ্ছে।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে বেলা ১১টায় কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচি থাকলেও সেখানে কাউকে জড়ো দেখা যায়নি।